বৃহস্পতিবার

ঢাকা, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

সর্বশেষ


ট্রেন্ডিং

আইনি লড়াইয়ে সিলিকন ভ্যালির টেক জায়ান্টরা

প্রকাশ: ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, সকাল ৯:০৮

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিবেদক

Card image

ছবি: সংগৃহীত

এরই পরিপ্রেক্ষিতে গুগল, মেটা, স্ন্যাপ ও টিকটকের পক্ষে প্রতিনিধিত্বকারী নেটচয়েস একটি মামলা করে। তাদের দাবি, এমন আইন সংবিধান ও বাক-স্বাধীনতার অধিকার লঙ্ঘন করে। ফেডারেল আদালতের বিচারক সাময়িকভাবে এ আইনটি স্থগিত করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি অঙ্গরাজ্যের সঙ্গে অনলাইনে অপ্রাপ্তবয়স্কদের নিরাপত্তা নিয়ে মেটা ও টিকটকের মতো প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর আইনি লড়াই চলছে। গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইও অঙ্গরাজ্যে ১৬ বছরের কম বয়সী অপ্রাপ্তবয়স্কদের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারের ক্ষেত্রে অভিভাবকের সম্মতি বাধ্যতামূলক করে একটি আইন পাস করা হয়।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে গুগল, মেটা, স্ন্যাপ ও টিকটকের পক্ষে প্রতিনিধিত্বকারী নেটচয়েস একটি মামলা করে। তাদের দাবি, এমন আইন সংবিধান ও বাক-স্বাধীনতার অধিকার লঙ্ঘন করে। ফেডারেল আদালতের বিচারক সাময়িকভাবে এ আইনটি স্থগিত করেছেন।

মূলত নেটচয়েসের মামলাটি যুক্তরাষ্ট্রে অঙ্গরাজ্যগুলোর অনলাইন নিরাপত্তা আইনের বিরুদ্ধে একটি প্রচেষ্টা। মামলাটি যুক্তরাষ্ট্রে অঙ্গরাজ্যগুলোর সরকার ও আইনপ্রণেতাদের ক্ষুব্ধ করেছে। কারণ সরকারি কর্মকর্তারা অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য নতুন অনলাইন নিরাপত্তা আইনটি তৈরির সময় প্রযুক্তি কোম্পানির সঙ্গে আলোচনা করেছিল বলে দাবি করেছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ার সিইওরা সিনেট জুডিশিয়ারি কমিটির শুনানিতেও অংশগ্রহণ করেন।

ওহাইওর লেফটেন্যান্ট গভর্নর এ প্রচেষ্টাকে নৈতিকতাবিবর্জিত ও প্রতারণামূলক বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি আরো বলেন, ‘আমরা যতটা সম্ভব প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে আইনটি তৈরি করেছি, কিন্তু নেটচয়েস শেষ মুহূর্তে মামলা করেছে।’

সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মগুলো যুক্তি দেখিয়েছে, ভিন্ন ভিন্ন অঙ্গরাজ্যের আইনের পরিবর্তে অভিন্ন একটি ফেডারেল আইন তারা চায়। নেটচয়েস দাবি করে, এ আইনগুলো প্রয়োগ হলে বাক-স্বাধীনতার অধিকার ও অপ্রাপ্তবয়স্কদের তথ্য পাওয়ার অধিকার লঙ্ঘিত হবে।

গত কয়েক বছরে যুক্তরাষ্ট্রে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারে মানসিক স্বাস্থ্যের নেতিবাচক প্রভাব নিয়ে জনসাধারণের মধ্যে উদ্বেগ বেড়েছে, যার প্রতিক্রিয়া হিসেবে উটাহ, আরকানসাস, ওহাইও, লুইজিয়ানা ও টেক্সাসসহ বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্য অপ্রাপ্তবয়স্কদের সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের জন্য অভিভাবকের সম্মতির প্রয়োজন হবে-এমন আইন পাস করেছে।

ক্যালিফোর্নিয়ায় সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য প্রাইভেসি সেটিংস আরো শক্ত করার লক্ষ্যে এইজ অ্যাপ্রোপ্রিয়েট ডিজাইন কোড অ্যাক্ট (এডিসিএ) চালু করা হয়। গত বছরের সেপ্টেম্বরে ফেডারেল আদালতের এক বিচারক ক্যালিফোর্নিয়াকে আইনটি স্থগিত করেন।

নেটচয়েসের মামলা যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্য আইন তৈরির প্রচেষ্টাকে বাধাগ্রস্ত করেছে। প্রাথমিকভাবে ক্যালিফোর্নিয়া ও আরকানসাসে অভিভাবকের সম্মতিভিত্তিক আইন স্থগিত হয়েছে। শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জেনেভিভ লাকিয়ার জানান, অঙ্গরাজ্যগুলোর ওপর সোশ্যাল মিডিয়ার নিয়ন্ত্রণে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার বিষয়ে বেশ চাপে রয়েছে। এ কারণে আইন তৈরি করা হয়েছে।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্যগুলোর সরকারি কর্মকর্তারা অনলাইনে অপ্রাপ্তবয়স্কদের নিরাপত্তা প্রদানের ক্ষেত্রে এ ধরনের আইনকে যুক্তিসংগত ও সময়োপযোগী বলে দাবি করেছেন।

ক্যালিফোর্নিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল রব বোন্টা জানান, বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের আইনগুলো সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মগুলো কীভাবে তরুণদের জন্য নিরাপদ করা যায় সে বিষয়ে নজর দিয়েছে। এটি সোশ্যাল মিডিয়ার কনটেন্টকে কোনোভাবে বাধাগ্রস্ত করার জন্য তৈরি হয়নি।

অন্যদিকে নাগরিক গোষ্ঠীগুলো সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, এ ধরনের আইন মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে। সোশ্যাল মিডিয়া কোম্পানিগুলো অঙ্গরাজ্যের আইনের সঙ্গে মিল রেখে অনলাইনে অপ্রাপ্তবয়স্কদের নিরাপত্তা নিশ্চয়তায় অভিন্ন ফেডারেল আইনের দাবি রেখেছে। সূত্র: দ্য নিউইয়র্ক টাইমস।

সংবাদটি পঠিত হয়েছে: ৬৮ বার

SPACE FOR AD (760 X 180)

ট্রেন্ডিং সম্পর্কিত নিউজ


Card image

‘সাইবার হামলার ঝুঁকিতে হাসপাতালগুলো’

প্রকাশ: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Card image

এআই নিয়ন্ত্রণ করা যায় না: গবেষণা

প্রকাশ: ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪