শুরু হলো ক্রেয়নম্যাগ আয়োজিত ‘নিউ নরমাল থ্রু মাই আইজ’ আলোকচিত্র প্রদর্শনী

প্রকাশঃ ০৩:৫১ মিঃ, সেপ্টেম্বর ২, ২০২১
Card image cap

ক্রেয়নম্যাগের উদ্যোগে ১ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে দু’সপ্তাহব্যাপী অনলাইন আলোকচিত্র প্রদর্শনী ‘নিউ নরমাল থ্রু মাই আইজ’। দেশের বিভিন্ন স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটোগ্রাফি ক্লাবের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রাজধানী ঢাকার ইএমকে সেন্টারে এই অনলাইন প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে।

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

ক্রেয়নম্যাগের উদ্যোগে ১ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে দু’সপ্তাহব্যাপী অনলাইন আলোকচিত্র প্রদর্শনী ‘নিউ নরমাল থ্রু মাই আইজ’। দেশের বিভিন্ন স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটোগ্রাফি ক্লাবের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রাজধানী ঢাকার ইএমকে সেন্টারে এই অনলাইন প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে। 

অনুষ্ঠানের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে আছে ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ (ইউল্যাব) । এই আয়োজনের অংশ হিসেবে গত ১৯ ও ২০ আগস্ট শিক্ষার্থীদের জন্য অনুষ্ঠিত হয়েছিল অনলাইন মাস্টারক্লাস ও ওয়েবিনার। ১৯ আগস্ট মাস্টারক্লাসের প্রশিক্ষক হিসেবে ছিলেন আলোকচিত্রী সাইফুল হক অমি। তিনি বাংলাদেশের আলোকচিত্র শিল্প ও তার বিকাশ এবং এর ভবিষ্যত নিয়ে আলোচনা করেন। সাইফুল হক আমি বলেন “আমরা ছবি কেন তুলি? এই প্রশ্নের উত্তরের মাঝেই লুকিয়ে আছে আপনার ছবি তোলার স্বার্থকতা।” ২০ এ আগস্ট মাস্টারক্লাসের প্রশিক্ষক হিসেবে ছিলেন বিশ্ব ব্যাংকের কনসালটেন্ট ফটোগ্রাফার কে এম আসাদ। তিনি অংশগ্রহণকারীদের সাথে আলোচনা করেন দুর্যোগকালীন আলোকচিত্র এবং এর নানান দিক নিয়ে। কে এম আসাদ বলেন "দুর্যোগকালীন পরিস্থিতিতে ছবি তুলতে অবশ্যই মানুষের সাথে এবং ঘটনার সাথে একাত্ম হতে হবে। তাদের কষ্টে সমব্যথী হতে হবে। তবেই একটা ছবি প্রাণ পাবে"। প্রাণবন্ত এই সেশন দুটিতে অংশগ্রহনকারীরা তাদের না জানা নানা বিষয়ে প্রশ্ন রাখেন।

ক্রেয়নম্যাগ এর প্রতিষ্ঠাতা তানজিরাল দিলশাদ দিতান বলেন, ''ছবি আসলে মানুষের কথা বলে। আজকের ছবি ভবিষ্যতের প্রামণ্য দলিল, ইতিহাসের অংশ। আমাদের এই প্রদর্শনীর উদ্দেশ্য হলো শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে করোনা আক্রান্ত বর্তমান পৃথিবীটাকে ভবিষ্যতের করোনা মুক্ত পৃথিবীর জন্যে ক্যামেরার লেন্সে সংরক্ষণ করা।"

মাস্টার ক্লাসের শেষে ২০ আগস্ট বিকেল ৫ টায় আয়োজিত হয়েছিল অনলাইন ওয়েবিনার। যেখানে মডারেটর হিসাবে ছিলেন আলোকচিত্রী জান্নাত জুঁই। অন্যান্য আলোচক আলোকচিত্রীদের মাঝে ছিলেন হাবিবা নওরোজ, মিশুক আশরাফুল আওয়াল এবং মাহমুদ হোসেন অপু। এই সেশনে তাঁরা কথা বলেন বিশেষ পরিস্থিতিতে কি ভাবে ছবি তুলতে হয় এবং সেফটি প্রিকরশন ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে।

সারাদেশের আটটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটোগ্রাফি ক্লাব এ বছরের আয়োজনে অংশগ্রহণ করেছে। ক্লাবগুলো হলো শাহজালাল ইউনিভার্সিটি ফটোগ্রাফার্স এ্যাসোসিয়েশন, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি আর্ট এ্যান্ড ফটোগ্রাফি ক্লাব, আর্মি আইবিএ ফিল্ম এ্যণ্ড ফটোগ্রাফি সোসাইটি, গণবিশ্ববিদ্যালয় ফটো লাইব্রেরী, ইনস্টিটিউট অফ সাইন্স এ্যান্ড টেকনোলজি ফটোগ্রাফি ক্লাব, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ ফটোগ্রাফি ক্লাব, আহছানউল্লা ইউনিভার্সিটি অফ সাইন্স এ্যান্ড টেকনোলজি ফটোগ্রাফি ক্লাব, শাটারবাগস ইউল্যাব। ক্লাবগুলোতে ২০০ এর বেশি শিক্ষানবীশ আলোকচিত্রী কাজ করে যাচ্ছেন।

অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের জমাকৃত আলোকচিত্র থেকে সেরা আলোকচিত্র গুলোকে প্রদর্শন করা হচ্ছে ১ থেকে ১৪ সেপ্টেম্বর আয়োজিত প্রদর্শনীতে। এই আয়োজনে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম সহযোগী হিসেবে রয়েছে ইএমকে সেন্টার।

১৯ আগস্ট অনলাইনে শুরু হওয়া এই আয়োজনের সমাপনী অনুষ্ঠান আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। সমাপনী অনুষ্ঠানে সেরা তিনজন আলোকচিত্রীর নাম ঘোষনা করা হবে।

অনলাইনে প্রদর্শনী দেখতে ভিজিট করতে হবে, https://www.emkcenter.org/exhibition

সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ১৯২ বার