তারবিহীন রেল যোগাযোগ গড়তে এলটিই-আর সল্যুশন চালু করলো হুয়াওয়ে

প্রকাশঃ ০৫:২৭ মিঃ, জুন ১৩, ২০১৯
Card image cap

পরবর্তী প্রজন্মের জন্য তারবিহীন রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়তে যৌথভাবে এলটিই-রেলওয়ে (এলটিই-আর) সল্যুশন চালু করলো শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে ও তাদের অংশীদার তিয়ানজিন ৭১২ কমিউনিকেশন অ্যান্ড ব্রডকাস্টিং কোম্পানি লিমিটেড (টিসিবি ৭১২)।

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

পরবর্তী প্রজন্মের জন্য তারবিহীন রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়তে যৌথভাবে এলটিই-রেলওয়ে (এলটিই-আর) সল্যুশন চালু করলো শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে ও তাদের অংশীদার তিয়ানজিন ৭১২ কমিউনিকেশন অ্যান্ড ব্রডকাস্টিং কোম্পানি লিমিটেড (টিসিবি ৭১২)। রেল যাত্রীদের নিরাপত্তা ও দক্ষতা নিশ্চিত করতে ইতোমধ্যে উচ্চ গতিসম্পন্ন, বিশ্বস্ত ও বুদ্ধিবৃত্তিক যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্পন্ন এই সল্যুশনটি চীনে চালু করা হয়েছে।সম্প্রতি (১০ জুন) সুইডেনের স্টকহোলমে আয়োজিত ইউআইটিপি গ্লোবাল পাবলিক ট্রান্সপোর্ট সামিট-২০১৯-এ হুয়াওয়ে এই প্রযুক্তি প্রদর্শন করে।

উচ্চ গতি সম্পন্ন ট্রেনের ব্যাপক উন্নয়নে মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা দ্রুত, নিরাপদ ও আরামদায়ক হয়েছে। নিরাপদ ও নির্ভরযোগ্য রেল সেবার মূল ভিত্তি যাত্রী, ট্রেন ও অবকাঠামোর মধ্যে তথ্য আদান প্রদান নিশ্চিত করে। এছাড়াও স্বয়ংক্রিয় ড্রাইভিং, বুদ্ধিবৃত্তিক ট্রেন এবং স্মার্ট স্টেশন গড়ে ওঠায় এখন উচ্চ গতি সম্পন্ন এবং বুদ্ধিবৃত্তিক তারবিহীন যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রয়োজন। এসব চাহিদা মেটাতে এবং সম্পূর্ণ সংযুক্ত রেলযোগাযোগ ব্যবস্থা গড়তেই এলটিই-আর সল্যুশন গড়ে তোলা হয়েছে।এই এলটিই-অর সল্যুশন ফাইভজি সমর্থন করে এবং জিএসএম-আর-এর সাথে সংযুক্ত। এই সল্যুশনের অ্যাডভ্যান্সড ফিচারগুলোর মধ্যে রয়েছে মাল্টিপল ট্রাকিং সার্ভিস (যেমন: মিশন ক্রিটিক্যাল পুশ টু টক ভয়েস, ভিডিও, ডাটা এবং এলটিই-আর সল্যুশনের মাধ্যমে ট্রেন নিয়ন্ত্রণ, ট্রেন ছেড়ে যাওয়া, যাত্রীর তথ্য সংরক্ষণ, সিসিটিভি এবং রেলের অন্যান্য সেবা)। ফাইভজির সহায়তায় এই সল্যুশন ভবিষ্যতে এমন একটি রেল সেবা গড়ে তুলবে, যেখানে সবকিছুই সংযুক্তি থাকবে।

এই সেবা চালুর অনুষ্ঠানে এই খাতে হুয়াওয়ের কাজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন হুয়াওয়ে এন্টারপ্রাইজ বিজনেস গ্রুপের গ্লোবাল ট্রান্সপোর্টেশন বিজনেস ইউনিটের প্রেসিডেন্ট ইমান লিউ। তিনি বলেন, ‘রেল খাতে যোগাযোগের ক্ষেত্রে হুয়াওয়ের ২০ বছরের অভিজ্ঞতা আছে, এক লাখ ২০ হাজার কিলোমিটারের বেশি রেল সেবা দিচ্ছে এবং বিশ্বে ১০০টিরও বেশি আরবান ট্রাক আছে। এক সাথে রেল যাত্রীদের চাহিদা অনুযায়ী তারবিহীন নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি গড়ে তুলতে বিনিয়োগ অব্যাহত ও নতুন নতুন উদ্ভাবনে হুয়াওয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এলটিই-আর সল্যুশনের মাধ্যমে ট্রেন থেকে স্টেশনের ও ট্রেন থেকে ট্রেনে তারবিহীন ভায়েস ও তথ্য আদান প্রদানের মাধ্যমে যোগাযোগ সম্ভব হবে।’

টিসিবি ৭১২-এর মোবাইল কিমিউনিকেশন বিজনেস ইউনিটের আর অ্যান্ড ডি বিভাগের জেনারেল ম্যানেজার ঝেং চিসুন বলেন, ‘১৯৬০ প্রতিষ্ঠার পর থেকে রেল খাতের উন্নয়নে কাজ করতে আমরা বদ্ধপরিকর। পরবর্তী প্রজন্মের তারবিহীন রেল যোগাযোগ গড়ে তুলতে ২০১০ সালের পর থেকে টিসিবি ৭১২ হুয়াওয়ের সহায়তায় জিএসএম-আর এবং এলটিই-আর সল্যুশন গড়ে তুলেছে। এই সল্যুশনগুলো গড়তে দুটি কোম্পানিকে অনেক চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হয়েছে। এই সল্যুশনগুলো দক্ষিণ আফ্রিকায় পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়, যেখানে যাত্রীরা একটি নিরাপদ ও নির্ভরযোগ্য রেল সেবার অভিজ্ঞতা নিতে পেরেছেন।’ 

হুয়াওয়ে সম্পর্কে:

হুয়াওয়ে বিশ্বের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় তথ্যপ্রযুক্তি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান। সমৃদ্ধ জীবন নিশ্চিতকরণ ও উদ্ভাবনী দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে একটি উন্নত ও সংযুক্ত পৃথিবী গড়ে তোলাই প্রতিষ্ঠানটির উদ্দেশ্য। নতুন নতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে হুয়াওয়ে একটি পরিপূর্ণ আইসিটি সল্যুশন পোর্টফোলিও প্রতিষ্ঠা করেছে যা গ্রাহকদের টেলিকম ও এন্টারপ্রাইজ নেটওয়ার্ক, ডিভাইস এবং ক্লাউড কম্পিউটিং-এর সুবিধাসমূহ প্রদান করে। প্রতিষ্ঠানটি বিশ্বের ১৭০টির বেশি দেশ ও অঞ্চলে সেবা দিচ্ছে যা বিশ্বের এক তৃতীয়াংশ জনসংখ্যার সমান। এক লাখ ৮০ হাজার কর্মী নিয়ে বিশ্বব্যাপী টেলিকম অপারেটর, উদ্যোক্তা ও গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করে ভবিষ্যতের তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক সমাজ তৈরির লক্ষ্যে হুয়াওয়ে এগিয়ে চলেছে। উল্লেখ্য, ২০১৮ সাল শেষে হুয়াওয়ের আয় প্রথমবারের মতো ১০০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে যা আগের বছরের চেয়ে ১৯.৫% বেশি। এছাড়া গবেষণা ও উন্নয়নে (আরএন্ডডি) বিনিয়োগ মোট বার্ষিক রাজস্বের ১৪.১%, যার ফলেই পণ্য ও সল্যুশনের ক্ষেত্রে হুয়াওয়ে শীর্ষস্থান নিশ্চিত করতে পেরেছে। বিশেষ করে ফাইভজি’র ক্ষেত্রে হুয়াওয়ে বিশ্বব্যাপী ৪০টি বাণিজ্যিক চুক্তি স্বাক্ষর করেছে এবং ইতোমধ্যে ৭০ হাজার বেইজ স্টেশন হস্তান্তর করেছে। প্রযুক্তিগত সক্ষমতায় হুয়াওয়ে ইন্ডাস্ট্রিতে অন্যান্যদের চেয়ে অন্তত ১২ থেকে ১৮ মাস এগিয়ে। 

আরও জানতে:

www.huawei.com

http://www.linkedin.com/company/Huawei

http://www.twitter.com/Huawei

http://www.facebook.com/Huawei

http://www.google.com/+Huawei

http://www.youtube.com/Huawei


সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ৪৪৮ বার