বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) উদ্বোধন করা হলো রোবোটিক্স ল্যাব

প্রকাশঃ ১০:৪৭ মিঃ, মে ৮, ২০১৯
Card image cap

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) উদ্বোধন করা হলো রোবোটিক্স ল্যাব। আইসিটি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহ্‌মেদ পলকএমপি এবং বুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম এই ল্যাবের উদ্বোধন করেন।

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) উদ্বোধন করা হলো রোবোটিক্স ল্যাব। আইসিটি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহ্‌মেদ পলকএমপি এবং বুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম এই ল্যাবের উদ্বোধন করেন। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বুয়েট রোবোটিক্স সেন্টার’ প্রতিষ্ঠার পদক্ষেপ হিসেবে 1 কোটি 65 লক্ষ টাকা ব্যয়ে এ ল্যাবটি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এই ল্যাবটি বুয়েটের শিক্ষার্থী-শিক্ষক এবং বিশ্ববিদ্যালয় ও বাইরের গবেষকদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

বাংলাদেশ হাই-টেক পার্কের অধীনে দুটি প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩২টি ল্যাব তৈরীর উদ্যোগ গৃহীত হয়েছে। কালিয়াকৈর হাই-টেক পার্ক (এবং অন্যান্য হাই-টেক পার্ক) এর উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে ইতোমধ্যে ১৫টি ল্যাব তৈরী সম্পন্ন হয়েছে এবং আরো ১০টি ল্যাব তৈরী করা হচ্ছে। উক্ত কালিয়াকৈর হাই-টেক পার্ক (এবং অন্যান্য হাই-টেক পার্ক) এর উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমেই বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে রোবোটিক্স ল্যাব তৈরী করা হয়েছে। আগামী দিনের প্রযুক্তি, রোবোটিক্স সম্পর্কিত দক্ষ মানবসম্পদ তৈরী এবং এ সংক্রান্ত গবেষণায় ল্যাবটি উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মাননীয় আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদেরকে এখন শ্রমনির্ভর অর্থনীতি থেকে বেরিয়ে মেধানির্ভর অর্থনীতির দিকে মনোনিবেশ করতে হবে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ধাক্কা সামলাতে হলে আমাদেরকে এখনই উচ্চতর প্রযুক্তির দিকে নজর দিতে হবে। রোবটিক্স চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় হতে পারে গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার। তিনি আরো বলেন, আমাদের দেশের এক ছেলে এখন গুগলের ডাইরেক্টর। শুধু গুগল নয়, ইনটেল, ফেসবুক, গুগল সব জায়গায় আমাদের ছেলেরা ভালো করছে। সরকারের অন্যতম লক্ষ্য হলো আমাদের মেধাবীদেরকে দেশেই ধরে রাখা। এই মেধাবীদের কাজে লাগাতে পারলে প্রযুক্তির জন্য বিদেশের দিকে চেয়ে থাকতে হবে না। তিনি বলেন, অমাদের সহযোগিতার হাত বুয়েটের জন্য সবসময় বাড়ানো থাকবে। দেশের প্রযুক্তি ও প্রকৌশল ক্ষেত্রে নেতৃত্ব দিচ্ছে বুয়েট। বুয়েটের হাত ধরেই দেশের অন্য সকল প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এগিয়ে যাবে।

বুয়েটের উপাচার্য প্রফেসর ড. সাইফুল ইসলাম বলেন, এই ল্যাব কোনো নির্দিষ্ট ডিপার্টমেন্ট-এর জন্য নয়। সকল বিভাগের শিক্ষার্থী-শিক্ষক এই ল্যাবে গবেষণা করতে পারবেন। তিনি বুয়েটে এমন একটি আধুনিক ল্যাব স্থাপনের জন্য প্রতিমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান। 

রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে জ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করার লক্ষ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ টেকসই উন্নয়নের মাধ্যমে জনগণের দোরগোড়ায় ইলেক্ট্রনিক পদ্ধতিতে সেবা পৌঁছে দিতে আইসিটি শিল্পের উন্নয়ন ও মানব সম্পদ উন্নয়নের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। দেশে আধুনিক প্রযুক্তিতে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার জন্য বর্তমান সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আগামী ২০২৩ সনের মধ্যে আইটি/আইটিইএস তথা হাই-টেক সেক্টর হতে ৫ বিলিয়ন ডলার রপ্তানী আয় এবং ২ মিলিয়ন কর্মসংস্থান সৃষ্টির উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। এ সকল উদ্যোগের মধ্যে দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাবরেটরি তৈরী অন্যতম। সারাদেশে ৬৫টি ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাবসহ ৪০১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ল্যাব ‘শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব’ এবং 160টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ‘শেখ রাসেল ডিজিটাল ক্লাসরুম’ স্থাপন করা হয়েছে। বৈদেশিক কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে ৯টি বিদেশী ভাষায় (ইংরেজি, ফ্রেঞ্চ, স্প্যানিশ, জার্মান, জাপানীজ, কোরিয়ান রাশিয়ান, আরবী ও চাইনিজ) ভাষাগুরু সফটওয়্যার তৈরী এবং ভাষাগুরু সফটওয়্যারের মাধ্যমে ১০২৪ জন শিক্ষককে ৯টি বিদেশী ভাষায় মাস্টার ট্রেইনার এর প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বুয়েটের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ১৮১ বার

সম্পর্কিত পোস্ট