মিয়ানমারে সহিংসতা রোধে ভুমিকা রাখেনি ফেইসবুক

প্রকাশঃ ০৪:৪১ মিঃ, নভেম্বর ৭, ২০১৮
Card image cap


টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

মিয়ানমারে ছড়ানো সহিংসতায় নিজেদের সামাজিক যোগাযোগে প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার রোধে প্রয়োজনিয় ভূমিকা রাখেনি বলে স্বীকার করেছে ফেইসবুক। মানবাধিকার বিষয়ক এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক মাধ্যমটি।

যুক্তরাষ্ট্রের স্যান ফ্রান্সসিকোভিত্তিক অলাভজনক সংস্থা বিজনেস ফর সোশাল রেসপনসিবিলিটি বা বিএসআর এই প্রতিবেদন তৈরি করেছে। এই প্রতিবেদনের শেষে বলা হয়, এই বছরের আগ পর্যন্ত আমরা অফলাইন সহিংসতা ছড়ানো ও বিভেদ উসকে দেওয়ার কাজে আমাদের প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার রোধে যথেষ্ট কাজ করছিলাম না।

২০২০ সালে মিয়ানমার নির্বাচনের সময় ভুল তথ্য ছড়ানোর শঙ্কা ব্যবস্থাপনায় ফেইসবুককে অবশ্যই প্রস্তুত হতে হবে বলে সতর্ক করেছে বিএসআর। হোয়াটসঅ্যাপ নিয়েও ক্রমবর্ধমার সংকট কাটাতে সতর্ক করা হয়েছে প্রতিবেদনে।

এর আগে চলতি বছর বিশেষ এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ফেইসবুক মিয়ানমারে রোহিঙ্গা ও এমন সংখ্যালঘু গোষ্ঠীগুলোকে নিয়ে আক্রমণাত্মক সামাজিক মাধ্যমের পোস্ট নিয়ে বিভিন্ন সংস্থার সতর্কতার আলোকে যথেষ্ট পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হয়েছে।

২০১৭ সালে সেনা অভিযানের মধ্যে মিয়ানমার থেকে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা তাদের বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে। এই ঘটনাকে জাতিগত নিধন হিসেবে আখ্যা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ আশ্রয় দেয়, এখনও তারা বাংলাদেশে শরণার্থী শিবিরেই বসবাস করছে।

ফেইসবুক চলতি বছর অগাস্টে মিয়ানমারের কয়েকজন সেনা কর্মকর্তার পেইজ সরিয়ে নিয়েছে। “ঘৃণামূলক ও ভুল তথ্য” ছড়ানোর অভিযোগে এসব পেইজ সরানো হয়। 

ফেইসবুক এখন তাদের সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানিয়েছে। বর্তমানে প্রশ্নবিদ্ধ হতে পারে এমন কনটেন্ট শনাক্তের জন্য এই প্ল্যাটফর্ম মিয়ানমারের ৯৯জন ভাষা বিশেষজ্ঞ কাজ করছেন। সেইসঙ্গে বাড়ানো হয়েছে স্বয়ংক্রিয় টুলের ব্যবহার।

বিএসআর জানিয়েছে, বর্তমানে মিয়ানমারে ফেইসবুকের ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় দুই কোটি। দেশটিতে স্থানীয়ভাবে কর্মী নিয়োগের মাধ্যমে ফেইসবুক সহায়তা পেতে পারে বলে পরামর্শ দিয়েছে সংস্থাটি। তবে ফেইসবুক কর্মীরা সেখানে দেশটির সামরিক বাহিনীর লক্ষ্যে পরিণত হতে পারে বলে সতর্কও করা হয়েছে। ইতোমধ্যে এই সামরিক বাহিনীর জাতিগত নিধনের অভিযোগ এনেছে জাতিসংঘ।

সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ২০ বার


মুখোমুখি

Card image cap
‘বাংলাদেশকেই হিটাচি পণ্যের বাজার হিসেবে অধিক সম্ভাবনাময় দেশ বলে মনে হয়’ - চেন টেক ব্যঙ্ক

হিটাচি হোম ইলেকট্রনিক্স এশিয়া প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব চেন টেক ব্যঙ্ক প্রকৃতঅর্থে একজন বয়োজষ্ঠ্য, কিন্তু তার জ্ঞানের পরিধি এবং অক্লান্ত পরিশ্রম তার বয়সকেও হার মানিয়ে দেয়। আর সে কারণেই তিনি হয়ে ওঠেন এক অদম্য যুবকের সমতুল্য। তার আধুনিক ব্যবসায়িক চিন্তাধারা এশিয় অঞ্চলে হিটাচি পণ্য ও সেবার  বাজারের ব্যাপক প্রসার ঘটাবে বলে আশা করা যাচ্ছে। বাংলাদেশে হিটাচি কোম্পানির ডিস্ট্রিবিউটর ইউনিক বিজনেস সিস্টেম লিমিটেড কর্তৃক আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে মাসিক টেকওয়ার্ল্ড পত্রিকার প্রতিনিধির জনাব চেন টেক ব্যঙ্ক এর সাক্ষাৎকার গ্রহণের সুযোগ হয়, যার উল্লেখযোগ্য অংশটুকু এখানে তুলে ধরা হলোঃ

প্রশ্নঃ সাধারণ